People Per Hour এ সফল হবার গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস

People Per Hour এ সফল হবার গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস

আপনারা যারা ফ্রিল্যান্সিং  করতে চান অনেকেই মনে করে আপওয়ার্ক ই কাজ করতে হবে,ফ্রিল্যান্সিং মানেই আপওয়ার্ক। একদম ই ভুল কথা, জানি না এরকম ভাবে ব্যাপারটা কেন আসলো। অবশ্যই আপওয়ার্ক বাংলাদেশ এর সবথেকে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস কিন্তু এ ছাড়াও আরও কিছু মার্কেটপ্লেস আছে যেখানে আপনি কাজ করতে পারেন।

এরকম একটা মার্কেট প্লেস এর নাম হল People Per Hour, দারুন একটা মার্কেটপ্লেস, আপনি এখানে ফাইবার এর মতো গিগ বানাতে পারবেন আবার আপওয়ার্ক এর মতো প্রপোসাল ও পাঠাতে পারবেন বায়ারদের কাছে। এখানে টাকার এমাউন্ট ও ভাল পাওয়া যায়।
সব মার্কেট প্লেস ই কম্পিটিশন আছে। এইটা মনে করার দরকার নেই People Per hour যেহেতু বাংলাদেশ এ ওইভাবে জনপ্রিয় না তাই খুব সহজেই কাজ পাওয়া যাবে। বাংলাদেশ এ জনপ্রিয় না থাকতে পারে কিন্তু People per hour তো শুধু বাংলাদেশ এর মার্কেটপ্লেস না সারা পৃথিবীতেই মানুষ কাজ করে এখানে তাই কম্পিটিশন বেশি। নিচে লেখার চেষ্টা করছি কিভাবে সফল হবে People per hour এ। কিন্তু এই লিখাটা পড়লে শুধু People per hour না আপনি ফাইবার এবং আপওয়ার্ক এ কিভাবে সফল হবে তার ধারনা পাবেন।

আপনার প্রোফাইল পরিপূর্ণ করুন

People Per hour  এ আপনার প্রোফাইল ঠিক মতো সাজান। কিছু সময় ব্যয় করুন প্রোফাইল বানাতে, অন্য জায়গা থেকে কপি পেস্ট না করে নিজে নিজে বানানোর চেষ্টা করুন। বায়ার প্রথম এ আপনার প্রোফাইল দেখবে তাই আপনার প্রোফাইল হতে হবে আকর্ষণীয়। প্রোফাইল এ আপনার নিজের ছবি ব্যবহার করুন, আপনার কাজের অভিজ্ঞতা লিস্ট এর মতো করে সাজিয়ে দিতে পারেন। আপনি আপানর কাজের স্টাইল কেমন সেরকম একটা ধারনা দিতে পারেন বায়ারকে তাহলে দেখবেন আপনার প্রোফাইল অনেকের থেকে অন্যরকম একটা প্রোফাইল হবে, আর অবশ্যই বানান এর দিকে লক্ষ্য রাখবেন, আপনার অনেক চমৎকার একটা প্রোফাইল নষ্ট হয়ে যেতে পারে আপনার ছোট্ট একটা বানান ভুল এর জন্য।


যত তাড়াতাড়ি সম্ভব জব অ্যাপ্লাই করুন

যত তাড়াতাড়ি বলতে আমি বুঝাতে চেয়েছি বায়ার যখন জব পোস্ট করে চেষ্টা করবেন এক ঘন্টা অথবা দুই ঘন্টার মধ্যে অ্যাপ্লাই করতে কিন্তু এমন তাড়াতাড়ি করতে যাবেন না যে ঠিক মতো না পড়ে ই অ্যাপ্লাই করে দিলেন অথবা জব এর ডেসক্রিপশন পরলেন কিন্তু কিছু না বুঝে এ অ্যাপ্লাই করে দিলেন, তাতে কাজ পাওয়ার সম্ভবনা খুব কম থাকে। জবটা দেখুন, বুঝে নিন কাজটা পারবেন কিনা, বায়ারকে কিভাবে ইম্প্রেস করা যায় সেটা ভাবুন, সে জন্য গুগল থেকে কিছু আইডিয়া নিয়ে বায়ারকে আপনি কি দিতে পারবেন সেগুলি বুঝান দেখবেন কাজ আপনার কাছে আসবে।


একটু অন্যরকম ভাবে জব অ্যাপ্লাই করুন

আপনি যখন People Per hour  এ একটা জব এর জন্য অ্যাপ্লাই করলেন আপনার সাথে আরও মানুষ ও অ্যাপ্লাই করবে, বায়ার তাকে ই কাজ দিবে যার জব অ্যাপ্লিকেশান তার কাছে একটু অন্যরকম মনে হবে, তাই চেষ্টা করুন জব অ্যাপ্লিকেশান এমন ভাবে লিখার জন্য যাতে সেটা একটু অন্যরকম হয়, এখন কথা হচ্ছে কেমন অন্যরকম,
খুব সোজা আপনার সাথে যারা অ্যাপ্লাই করবে দেখা যাবে তারা অনেকেই কপি করছে, আর আপনি যদি কপি না করেন তাহলে আপনি বেশ একটু এগিয়ে গেলেন,আপনি যদি বিজনেস কার্ড ডিজাইন এর জব এ অ্যাপ্লাই করেন তাহলে আপনি কতটা এক্সপার্ট সেটা না লিখে আপনি কিভাবে সেই কাজটি করবেন সেটি লিখুন, বায়ার যেরকম বলেছে তার থেকে আরও ভাল ভাবে করা যায় কিনা সেটা বায়ারকে লিখুন। সাথে আপনার একটা ডিজাইন পাঠিয়ে দিন। সব থেকে ভাল হয় যদি আপনি একটা পোর্টফলিও সাইট তৈরি করতে পারেন। তাহলে সেখানে আপনার কাজগুলি রাখবেন আর জব অ্যাপ্লিকেশান এ সেই ওয়েবসাইট এর লিঙ্ক দিয়ে দিবেন। আপনি ওয়ার্ডপ্রেস এ ফ্রী সাইট খুলতে পারেন, এছারাও ফটো অ্যালবাম করা যায় এরকম কিছু জনপ্রিয় সাইট আছে সেখানে আপনার পোর্টফলিও সাঁজাতে পারেন। যেমন Flickr,Picasa ইত্যাদি।


কাজের মূল্য ঠিক মতো নির্ধারণ করুন

আপনি ঠিক মতো মূল্য নির্ধারণ করুন মানে এই না যে আপনি সস্তায় কোন কাজ করবেন, আপনি যে ধরন এর কাজ করছেন তার উপর ভিত্তি করে আপনি মূল্য নির্ধারণ করুন। আপনার বায়ার জানে যে ভাল, মানসম্মত, সৃজনশীল, অভিজ্ঞদের দিয়ে কাজ করাতে হলে তাকে টাকা খরচ করতে হবে তাই আপনি যদি মনে করেন আপনি দক্ষ তাহলে আপনার মূল্য উল্লেখ করে দিন অ্যাপ্লিকেশান এ। আর আপনি যদি না বুঝেন কোন কাজের জন্য কত মূল্য আর সেটা স্বাভাবিক আপনি যখন নতুন তখন একগুলি একটু কম ই বুঝবেন আর তাতে হতাশ হউয়ার কিছু নাই। আপনি অন্নদের প্রোফাইল দেখুন তারা কিভাবে মূল্য নির্ধারণ করেছে, অথবা আপনি People Per Hour ফোরাম এ লিখতে পারেন যে আপনি বুহজতে পারছেন না কিভাবে মূল্য নির্ধারণ করবেন, ফেসবুক এর গ্রুপ এ অভিজ্ঞদের সাথে কথা বলে দেখতে পারেন।


জব এ অ্যাপ্লাই করার আগে নিজে নিজে কিছু অভিজ্ঞতা অর্জন করুন

আপনি People Per hour  এ অভিজ্ঞদের প্রোফাইল দেখুন ভাল একটা আইডিয়া পাবেন। তাদের পোর্টফলিও তে কি ধরনের কাজ দেয়া আছে তার সম্পর্কে একটা ধারনা নিন। একজন কি সব ধরনের কাজ করছে নাকি দুই একটা নির্দিষ্ট জায়গায় কাজ করছে বুঝে নিন। তারপর আপনার পোর্টফলিওর জন্য কিছু কাজ বানান,এখানে কারো ডিজাইন কপি না করলে ই ভাল, আইডিয়া নেন সেখান থেকে নিজে একটা ডিজাইন তৈরি করেন। , আগে যদি বানানো থাকে দেখেন কোন ধরনের এডিটিং এর প্রয়োজন হয় কিনা, মনে রাখবেন আমাদের লোকাল মার্কেটে ডিজাইন এর মান আর বাইরের মার্কেট এ ডিজাইন এর মান এক না তাই খেয়াল রাখতে হবে বাপারটি।


কখনও হতাশ হবেন না

আপনি যখন কাজ করতে যাবেন এরকম ভাবার সুযোগ নেই আপনি দুই দিন পর ই কাজ পেয়ে যাবেন, তাই আপনাকে ধৈর্য রাখতে হবে, হতাশা আসতে ই পারে যদি দেখেন আপনার জব প্রপোসাল একটার পর একটা বাতিল হচ্ছে। মনে রাখবেন বায়ার হয়ত নিবে একজনকে তাই সেই একজন বাদে সবার প্রপোসাল ই কিন্তু বাতিল হবে, তাই বায়ার কিন্তু শুধু আপনার প্রপোসাল ই বাতিল করে নাই। মনে রাখবেন কঠোর পরিশ্রম যখন করবেন তখন আপনি সফল হবেন। এমন সময় আসবে যখন শুধু আপনার প্রপোসাল বায়ার গ্রহন করবে বাকিদেরগুলো বাতিল। কিরকম কম্পিটিশন আছে, আপনার প্রপোসাল গ্রহন করবে কিনা এতো কম্পিটিটর এর মধ্যে এরকম চিন্তা না করে নিজের স্কিল বাড়ান, সৃজনশীল ভাবে কাজ করার চেষ্টা করুন দেখবেন কাজ আপনি পাবেন। শুধু প্রথম কাজ পাওয়ার জন্য ই একটু অপেক্ষা।


আরিফুল ইসলাম,প্রশিক্ষক, গ্রাফিক ডিজাইন
আমার নাম আরিফুল। গ্রাফিক ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, ব্র্যান্ডিং ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কাজ করি। লিখতে অনেক ভালোবাসি। মুলত আইটি বিষয়ক বিভিন্ন লেখা লিখি থাকি।আমি এই ব্লগের এডমিন। আশা করি আপনাদের ভালো কিছু আর্টিকেল দিতে পারবো যা পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন। এটার সাথে আমি ই ক্যাব এবং জেনেসিস ব্লগে ও লিখে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *