ফ্রিল্যান্সিং

আপনার ক্লাইন্টকে যে ৪টা ব্যাপারে জানাতে হবে-ফ্রিল্যান্সিং টিপস

আপনার ক্লাইন্টকে যে ৪টা ব্যাপারে জানাতে হবে-ফ্রিল্যান্সিং টিপস

আপনি জানেন যে ফ্রিল্যান্সিং কাজে আপনার ক্লাইন্টকে সব সময় আপডেট দিতে হবে যেন সে এরকম চিন্তা না করে যে আপনি তার কাজটা ঠিক মত করতে পারছেন না অথবা পারবেন না। তাই নিয়মিত কথা বলে যাওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ তাতে দুইজন ই দুইজন সম্পর্কে আপডেট থাকবেন। এরকম যদি আপনি করেন তাহলে সম্ভাবনা থাকবে সে আপনাকে আবার হায়ার করবে। সেটা চিন্তা করে নিচে ৪টা পয়েন্ট তুলে ধরছি যেটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ ফ্রিল্যান্সিং কাজের জন্য।

আপনি যদি ছুটিতে যান

অনেকে মনে করেন ফ্রিল্যান্সিং কাজে ছুটির দিন নাই, ব্যাপারটা অনেক টা সঠিক হলে ও ফ্রিল্যান্সারদের ছুটি প্রয়োজন অবশ্যই হয়। তাই আপনাকে ক্লাইন্টকে বলে যেতে হবে যে আপনি বাইরে যাচ্ছেন যেন সে যখন আপনাকে খোঁজার চেস্টা করবে আপনাকে পাবে না এরকম না হয়। এটা নিশ্চিত করবেন যে তাকে ঠিক মত খবরটা দেয়া, কিছুদিন আগে থেকে খবর টা দেয়া যেন তার যদি প্রয়োজন হয় তাহলে তাড়াতাড়ি সে একটা ব্যাবস্থা করতে পারে।

যদি আপনি ঠিক সময়ে কাজ জমা দিতে না পারেন

এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ যে ঠিক সময়ে কাজ জমা দেয়া আর এটা ও ঠিক যে কখনো এরকম হতে ও পারে যে আপনি আপনার দেয়া সময় অনুযায়ী কাজ জমা দিতে পারছেন না, তাহলে অবশ্যই ক্লাইন্টকে আগেই জানাতে হবে যে আপনি ঠিক সময়ে কাজ জমা দিতে পারবেন না তাহলে ক্লাইন্ট বিপদে পরবে না, আশা করি আপনি ও না যদি আপনি ক্লাইন্টকে যুক্তি দিয়ে বোঝাতে সক্ষম হোন।

আর ব্যাপারটা যদি এমন হয় যে আপনার অলসতার জন্য আপনি পারছেন না তাহলে খুব একটা ভালো হবে না কিন্তু সেখান থেকে আপনি পরের কাজগুলার জন্য তৈরি হতে পারেন যে আর কখনো এরকম না করার চেস্টা করবেন কারন এমন হলে আপনার ক্লাইন্ট খুশি হবে না আর সেটা আপনার জন্য খুব একটা ভালো কিছু হবে না।

আপনার পারিশ্রমিক বাড়াতে চান

 ফ্রিল্যান্সিং এ এটা সব সময় ই একটা জটিল ব্যাপার। আপনার বিজনেস কে যদি আপনি বাড়াতে চান তাহলে একটা সময়ে এসে আপনাকে আপনার ফি ও বাড়াতে হবে, এটা আপনার উপর নির্ভর করে যে এটা আপনি কখন কিভাবে করবেন তবে সেটা যদি আপনার চলমান ক্লাইন্টের জন্য হয় তাহলে এটা লক্ষ্য রাখতে হবে যে যত দ্রুত সম্ভব তাকে সেটা জানাতে হবে কারন আপনি তার কাজ নিয়ে ফেলেছেন একদম শেষে গিয়ে যদি আপনি বলেন আপনার ফি বাড়াতে হবে তাহলে সেটা কারো জন্য ই খুব ভালো হবে না।

 

আপনি যখন অনিশ্চিত

অনেক সময় এরকম হতে ই পারে যে ক্লাইন্ট আপনার কাজ পছন্দ করছে না আবার আপনি ও ঠিক বুঝতে পারছেন না যে ক্লাইন্ট আসলে কি চাচ্ছে, তখন সমস্যা তৈরি হয়। তাই এখানে আপনাকে বুঝতে হবে যে ক্লাইন্ট যেটা বলল সেটা আপনি ঠিক মত বুঝেছেন কিনা যদি না বুঝে থাকেন অথবা কোন দ্বিধা থাকে সব থেকে ভালো হয় তার সাথে আর একবার কথা বলে নেন, নে হলে দেখা যাবে আপনি আপনার মত বুঝে কাজ করলেন কিন্তু সেটা আসলে ক্লাইন্ট চাচ্ছিলো না।

কাজ নেয়ার আগে আপনাকে অবশ্যই ক্লাইন্ট এর সাথে বিস্তারিত কথা বলে নিতে হবে, সের কি চায়, কিভাবে চায়, আবার আপনি সেটা রিপিট করে জেনে নিবেন যে আপনি ঠিক মত বুঝলেন কিনা। তারপর ও যদি ক্লাইন্ট সমস্যা করে তাহলে আপনি সেগুলি তাকে দেখাতে পারবেন যে সে যেভাবে বলেছিলো আপনি সেভাবেই করেছেন।

 

ফ্রিল্যান্সিং যেহেতু আপনি তার সামনে বসে অথবা অফিসে বসে কাজ করছেন না তাই এখানে কমিউনিকেশনটা খুব গুরুত্বপূর্ণ, আপনি কখন কাজ করছেন, কিভাবে কাজ করছেন, ক্লাইন্ট যে ভাবে বলেছে সে ভাবে করতে পারছেন কিনা, ঠিক সময়ে জমা দিতে পারবেন কিনা ইত্যাদি ব্যাপারগুলি খুব গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাড়ায়। তাই আপডেট জানানো আপনার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ যদি আপনি চান যে সে আবার আপনাকে কাজ দিক। আর ভালো ফিডব্যাক এর গুরুত্ব তো আপনি জানেন ই।

 

 

 

আমার নাম আরিফুল। গ্রাফিক ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, ব্র্যান্ডিং ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কাজ করি। লিখতে অনেক ভালোবাসি। মুলত আইটি বিষয়ক বিভিন্ন লেখা লিখি থাকি।আমি এই ব্লগের এডমিন। আশা করি আপনাদের ভালো কিছু আর্টিকেল দিতে পারবো যা পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন। এটার সাথে আমি ই ক্যাব এবং জেনেসিস ব্লগে ও লিখে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *