select-right-color

ডিজাইন এ কিভাবে রঙ নির্বাচন করবেন

ডিজাইন এ কিভাবে রঙ নির্বাচন করবেন

প্রকৃতি থেকে কালার নিবো

 

সুন্দর সুন্দর ছবি থেকে কালার নিয়ে দেখতে পারেন, যেমন, সূর্য অস্ত যাওয়ার সময় আকাশে যে কালার শেড তৈরি হয়, অথবা ফুলের পাপড়ি তে যে সুন্দর গ্র্যাডিয়েন্ট এফেক্ট থেকে এরকম ছবি থেকে কালার নিয়ে সেটা ব্যাকগ্রাউন্ডে, বিভিন্ন টেক্সটে ব্যবহার করা যেতে পারে।সব কালার ই তো প্রকৃতিতে আছে আমরা সেদিকে তাকাই তাহলে কালার নিয়ে অনেক জট খুলে যাবে। আর ছবি থেকে কালার নেয়ার জন্য তো আই ড্রপার টুল আছেই।

বাইরে গেলে কত ডিজাইন, কত কালার

 

আমরা যখন ঘর থেকে বাইরে যাই তখন অনেক ধরনের ডিজাইন আমাদের চোখে পরে। কত কিছুই তো তাই না? পোস্টার, ব্যানার, বিলবোর্ড আরও কত কিছু, সেখান থেকে যে ডিজাইন দেখে আমাদের ভালো লাগছে সেটা আমরা সংগ্রহ করে রাখতে পারি, মোবাইল দিয়ে ছবি তুলে রাখলে ই তো হয়ে যায়। এরপর আমরা দেখি সেই ডিজাইন এর কালার কম্বিনেশন কিরকম, কোন কালার এর ব্যাকগ্রাউন্ড এর সাথে কোন কালার এর টেক্সট ব্যবহার করা হয়েছে। পুরা ডিজাইনে কতগুলি কালার ব্যবহার করা হয়েছে। যেটা খুব ই গুরুত্বপূর্ণ। অনেকে কালারফুল ডিজাইন বানাতে গিয়ে এমন কালারফুল ডিজাইন করে যে সেটা আর দেখা যায় না। তাই কালার কম্বিনেশন বুঝাটা অনেক জরুরী।

 

ডিজাইন এ বেশি কালার দরকার নেই

কালারফুল ডিজাইন করতে গিয়ে জগাখিচুড়ি হয়ে যায় অনেক ডিজাইন। কালারফুল ডিজাইন মানে কিন্তু এই না যে আপনাকে একটা ডিজাইন এর মধ্যে ১০-১২ টা কালার এনে একদম ঢেলে দিতে হবে। একটা ডিজাইন ই কতগুলি কালার ব্যবহার করবেন এর উপরে ডিজাইন এর অনেক কিছু নিরভর করে। আপনি ৩ টা কালার ব্যবহার করেন খুব বেশি হলে ৪টা দেখবেন ডিজাইন অনেক ক্লিন লাগবে আর ৩-৪ টা কালার ব্যবহার মানে এই না যে লাল, নীল, হলুদ, সবুজ সব একসাথে নিয়ে আসতে হবে, একটা কালার এর মধ্যে ই অনেক শেড থাকে আমরা সেই শেড গুলি ও ব্যবহার করে দেখতে পারি।

 

 

বিষয়ের সাথে মিল রেখে কালার নেন

 

যে জিনিশ টা ডিজাইন করছেন তার বিষয় বস্তুর সাথে মিল রেখে কালার ব্যবহার করলে ভালো হয়। আপনি যদি খেলাধুলার জন্য কোন পোস্টার করেন সেখানে যে কালার দিবেন, সেই কালার ই যদি বিয়ের কার্ড ডিজাইনে দেন তাহলে আমার মনে হয় না ডিজাইন টা দেখতে ভালো লাগবে। তাই ডিজাইন এর ধরন দেখে কালার নির্বাচন করলে ভালো হবে। এ ক্ষেত্রে ও আপনারা বিভিন্ন ডিজাইন থেকে কালার নিয়ে দেখতে পারেন। নকল করলে কিছু ই শিখতে পারবেন না, আইডিয়া নেন দেখবেন অনেক কিছু জানতে পারছেন।

 

বাকিটা আপনার উপর

 

শেষ করি কালার এর ব্যাপার টা সম্পূর্ণ ভাবে আপনার উপর ছেড়ে দিয়ে। উপরের পয়েন্টগুলি খুব ই গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু সেগুলি তখন ই কাজ এ লাগবে যখন আপনি সেগুলি কে কাজে লাগাবেন। এক জায়গায় বলেছি যে ডিজাইন টা ভালো লাগবে সেই ডিজাইন এর ছবি তুলে ফেলুন। দেখলেন তো আপনার কাছে যে ডিজাইন ভালো লাগবে সেই ডিজাইন এর ছবি। আমরা যখন ডিজাইন করতে বসি যদি কোন কালার না বলা থাকে তাহলে দেখা যায় আমাদের প্রিয় কালারগুলি বারবার আমাদের ডিজাইন এ চলে আসে আর এইটা ই বোধয় স্বাভাবিক। একটা, দুইটা ডিজাইন খুব ভালো লাগে কিন্তু আস্তে আস্তে ডিজাইনগুলি একরকম হয়ে জায়।তাই আমরা চেষ্টা করি আমাদের প্রিয় রংগুলির সাথে আমাদের প্রকিতি, চারপাশের কালার থেকে কালার নিয়ে ডিজাইন করার জন্য। মনে রাখব একটা ডিজাইন কিন্তু আমরা আমাদের নিজের জন্য করছি না,অনেক মানুষ এর জন্য করছি তাই সেই ভাবে ই চিন্তা করতে হবে।

 

আরিফুল ইসলাম

 

আমার নাম আরিফুল। গ্রাফিক ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, ব্র্যান্ডিং ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কাজ করি। লিখতে অনেক ভালোবাসি। মুলত আইটি বিষয়ক বিভিন্ন লেখা লিখি থাকি।আমি এই ব্লগের এডমিন। আশা করি আপনাদের ভালো কিছু আর্টিকেল দিতে পারবো যা পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন। এটার সাথে আমি ই ক্যাব এবং জেনেসিস ব্লগে ও লিখে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *