কালার হুইল

কালার হুইল নিয়ে জেনে নিন বিস্তারিত-গ্রাফিক ডিজাইন টিপস

কালার হুইল নিয়ে জেনে নিন বিস্তারিত-গ্রাফিক ডিজাইন টিপস

কালার হুইল যারা গ্রাফিক ডিজাইন এর কাজ করেন তারা মোটামুটি সবাই চেনেন। কিন্তু জানেন কি সেটা কিভাবে সাজানো আছে, কয়টা ভাগ আছে এখানে, তার নামগুলি কি কি? হয়ত চিন্তা করছেন জেনে কি হবে? কালার দেখলে ই তো বুঝা যায়, ব্যাপারটা আসলে এতো সহজ না, আপনি যদি এগুলি জেনে কাজ করেন তাহলে আপনার কাজ আরও মানসম্মত হবে, আরও মিনিংফুল হবে।

 

উপরে কালার হুইল এর ছবি দিলাম। এখন বিস্তারিত জেনে নিন। এখানে ৩ ধরন এর কালার আছে, একটা হচ্ছে Primary color, আর একটা হচ্ছে secondary color আর ৩ নাম্বারটা হচ্ছে Tertiary color। নিচে দেখে নিন কোনটা কোন কালার। এখানে আর একটা ব্যাপার আছে cool color এবং warm color কোন অংশ cool আর কোন অংশ warm ছবিতে দেখানো হয়েছে। আশা করি বুঝবেন।
Primary color – উপরের ছবিতে ৩টা কালার এর পাশে Primary color লেখা আছে, Blue, Yellow এবং red এর মধ্যে। এই ৩টি হচ্ছে primary color অথবা প্রধান কালার।
secondary color– secondary color হচ্ছে primary color সমান ভাবে মিশালে যে কালার বের হয় সেগুলি হচ্ছে secondary color। যেমন Green, orange এবং violet।
Tertiary color– Tertiary color হচ্ছে primary color এর সাথে secondary color মিশালে যে কালার পাওয়া যায় সেগুলি যেমন Red আর orange মিশালে রেডিশ অরেঞ্জ বের হবে।
https://color.adobe.com/create/colo… এই লিঙ্ক এ যান, চমৎকার একটা ওয়েবসাইট যেটার মাধ্যমে আপনি কালার কম্পোজিশন অনেক ভালো করে করতে পারবেন।
কালার এর আরও কিছু ভাগ আছে যেমন monocromatic color,analogous colors,complimentary colors,triadic colors
Monochromatic color – এটা হচ্ছে এক ই কালার এর বিভিন্ন ধরন এর শেড। ওয়েবসাইট এ গিয়ে Monochromatic color এ ক্লিক করেন, দেখবেন নিচে এক ই কালার এর বিভিন্ন শেড আসবে। হুইল এর মধ্যে ঘুরান দেখবেন যে কালার নিচ্ছেন সেই কালার এর বিভিন্ন শেড পাচ্ছেন। নিচের ছবিটা দেখলে আশা করি বুঝতে পারবেন।
Monochromatic color ব্যবহার করার কথা আমরা প্রায় বলি, একটা ডিজাইন এ অনেকগুলা কালার ব্যবহার না করে এক ই কালার এর বিভিন্ন শেড থিম কালার হিসেবে ব্যবহার করলে ডিজাইন দেখতে অনেক ভালো হয় এবং এখন এটার ট্রেন্ড ও চলছে।
Analogous colors– কালার হুইল এর কাছাকাছি ৩টা কালার মিশ্রণ। নিচে ছবি দিচ্ছি। এই কালারগুলা অনেক আকর্ষণীয় হয়, যে ওয়েবসাইট এর লিঙ্ক দিলাম সেখানে গিয়ে হুইল ঘুরিয়ে দেখতে পারেন। এই কালারগুলা কালার থিম হিসেবে ব্যবহার করলে সেখানে ভালো Contrast পাওয়া যায়, অর্থাৎ একটা কালার থেকে আর একটা কালার এর কিছুটা পার্থক্য থাকে।
আপনারা এই কালার কোড এবং কম্বিনেশন গুলা https://color.adobe.com/create/colo… এই লিঙ্ক এ পেয়ে যাবেন।
Complimentary colors– এটা হচ্ছে কালার হুইল এর একটা কালার তার সাথে ঠিক তার উল্টা পাশের কালার এর মিশ্রণ। নিচে ছবি দিচ্ছি। এখানে অনেক বেশি contrast থাকবে, কারন একটা কালার এর উল্টা পাশের কালার আর একটা তাই অনেক কালারফুল ডিজাইন এ এটাকে কালার থিম করতে পারেন।
Triadic colors– এটা হচ্ছে কালার হুইল এর সমান ৩টা ভাগে যে কালার পাওয়া যায় তার মিশ্রণ, ছবিতে বুঝতে পারবেন আশা করি। এখানেও বেশি contrast থাকবে, অনেক কালারফুল ডিজাইন এর ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারেন।
আশা করছি ওয়েবসাইট এ ঢুকে নিজে নিজে অনেক কিছু বের করতে পারবেন। অনেক কিছু বুঝতে পারবেন। আমি কালার হুইল নিয়ে একটা বেসিক ধারনা দেয়ার চেষ্টা করলাম। ধন্যবাদ।
আরিফুল ইসলাম
প্রশিক্ষক গ্রাফিক ডিজাইন।
আমার নাম আরিফুল। গ্রাফিক ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, ব্র্যান্ডিং ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কাজ করি। লিখতে অনেক ভালোবাসি। মুলত আইটি বিষয়ক বিভিন্ন লেখা লিখি থাকি।আমি এই ব্লগের এডমিন। আশা করি আপনাদের ভালো কিছু আর্টিকেল দিতে পারবো যা পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন। এটার সাথে আমি ই ক্যাব এবং জেনেসিস ব্লগে ও লিখে থাকি।

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *