আপওয়ার্ক যেভাবে কাজ করলে আপনি অবশ্যই সফল হবেন পর্ব- ২

আপওয়ার্ক যেভাবে কাজ করলে আপনি অবশ্যই সফল হবেন পর্ব- ২

পর্ব ১ না পড়ে থাকলে পড়ে নিন নিচের লিঙ্ক থেকে

আপওয়ার্ক যেভাবে কাজ করলে আপনি অবশ্যই সফল হবেন পর্ব- ১

কিভাবে জব এর জন্য অ্যাপ্লাই করবেন এবং সেই জব পাবেন

আপনি যখন আপওয়ার্ক এ জব এর জন্য অ্যাপ্লাই করবেন তখন মনে হবে কত প্রতিযোগিতা। আসলে ই অনেক প্রতিযোগিতা কিন্তু আসল ব্যাপারটা হল এখানে যারা অ্যাপ্লাই করে তারা বেশির ভাগ ই কপি করা কাভার লেটার লিখে দেয়, এই আশায় যে যত তাড়াতাড়ি অ্যাপ্লাই করা যাবে তত কাজ পাওয়ার সম্ভবনা বেশি থাকে। এমন কি অনেকে ঠিক মতো জব এর ডেসক্রিপশন পড়ে ই না। তাই আপনি যখন অ্যাপ্লাই করার আগে দেখেন ৫০ জব অ্যাপ্লাই করে ফেলেছে তাই আপনার কোন সুযোগ ই নাই কাজটা পাওয়ার আসলে সত্যি কথা হল এই ৫০ জন এর মধ্যে ৪৫ জন ই প্রতিজগিতায় টিকতে ই পারবে না। আর আপনি যদি সেই প্রতিজগিতায় টিকতে চান তাহলে আপনাকে যা করতে হবে।

কাভার লেটার লিখার কিছু সুপার টিপস

  • অনেক বার বলেছি আবার ও বলছি কপি করা কাভার লেটার ব্যবহার করবেন না, করলে প্রথমেই বাদ হয়ে যাবেন। প্রত্যেকটা জব এর জন্য আলাদা করে কাভার লেটার লিখুন এবং বায়ার যে কাজের কথা বলেছে সে সম্পর্কে লিখুন, এখানে আপনার বেশি গুনগান না করলে ও চলবে। আপনি কেন কাজটি করতে চান, কাজটি কিভাবে করতে চান,বায়ার অন্নদের কাজটা না দিয়ে আপনাকে কেন দিবে সেগুলি সেই জব এর প্রেক্ষাপট এ লিখুন। আর একটা কাভার লেটার এ কাজ পেয়ে গেলে সেটাকে আদরশ কাভার লেটার ভেবে পরবর্তী জব অ্যাপ্লাই করতে সেটি ব্যবহার করবেন না।
  • ভাল হয় বায়ার যে ধরন এর কাজ চেয়েছে সেরকম একটা কাজ যেটা আপনি আগে করেছেন সেরকম লিঙ্ক দেয়া যেতে পারলে। যেমন বায়ার যদি রিয়াল এস্টেট কোম্পানির কোন লোগো চায় তাহলে আপনার আগের বানানো কোন রিয়াল এস্টেট কোম্পানির লোগোর লিঙ্ক দিয়ে দিন, লিখে দেন আপনি লিঙ্ক দিয়েছেন, কেন দিলেন এবং সেটা তার জব এর সাথে কিভাবে যায়।
  • আপনি এরকম ই অন্য একটা কাজ করেছেন, করতে গিয়ে আপনি কিছু সিস্টেম ফলো করেছেন এবং সফল হয়েছেন, বায়ার আপনাকে ভাল রিভিউ দিয়েছে সেরকম পেপার ওয়ার্ক করে থাকলে বায়ারকে সেন্দ করে দিতে পারেন এবং বলে দিতে পারেন এই ভাবে কাজ করে আপনি সফল হয়েছেন আগে তাই এখন ও এইভাবে কাজ করতে চান
  • সত্যি কথা হল যাদের মাতৃভাষা ইংলিশ তাদের জন্য কাজ পাওয়া, কাজের মূল্য বাড়িয়ে নেয়া একটু সহজ, এখানে এততুকু বলা যায় আপনি যদি মনে করেন যে আপনি ইংলিশ এ ভাল ভাবে যোগাযোগ রাখতে পারেন তাহলে সেটাও কাভার লেটার এ উল্লেখ করা যেতে পারে।
  • আর একটা খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সেটা হল কাভার লেটার এর মধ্যে বায়ারকে প্রশ্ন করা, সে যে জব এর কথা বলেছে সে জব নিয়ে প্রশ্ন করা, হয়তো আপনি কোন একটা ব্যাপার বুঝেন নাই অথবা সে জেভাবে বলেছে আপনি একটু অন্যরকম ভাবে করতে চাইছেন তাহলে কাভার লেটার এ সেগুলি লিখে দিতে পারেন তাহলে বায়ার বুঝতে পারে যে আপনি তার জব পুরাপুরি ভাবে পরেছেন, বুঝার চেষ্টা করছেন এবং আপনি হয়তো তার কাজটি করতে পারবেন।

বায়ার এর সাথে যোগাযোগ করবেন কিভাবে

আপনি জব এর জন্য অ্যাপ্লাই করার পর বায়ার আপনাকে মেসেজ করতে পারে, কিছু প্রশ্ন করে একদম নিশ্চিত হয়ে সে হয়তো আপনাকে হায়ার করবে, তাই চেষ্টা করবেন সেই মেসেজ এর উত্তরগুলি যত তাড়াতাড়ি দেয়া সম্ভব আর যতটা বিস্তারিত ভাবে দেয়া সম্ভব।

এরকম ব্যাপার এ দুইটা উপায় আছে জার মাধ্যমে আপনি কাজ পেতে পারেন

প্রশ্ন করেন বায়ারকে

আপনি তাদেরকে বুঝান যে আপনি অনেক বেশি আগ্রহী কাজটা করতে এবং কাজটা সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে, তাদেরকে বলেন যে বিস্তারিত না জানলে কাজটা তার ই ভাল লাগবে না। অথবা কিছু প্রশ্ন করেন যেমন

সে কাজটি করতে বলেছে সেরকম কোন ডেমো কাজ তার কাছে আছে কিনা, তার চিন্তার সাথে আপনি ভাল ভাবে যুক্ত হতে পারবেন।

কত দিনের মধ্যে কাজটা কমপ্লিট করতে হবে এরকম কিছু ব্যাপার নিয়ে ও প্রশ্ন করতে পারেন। কিন্তু প্রশ্নর ব্যাপারটা আসলে আসবে প্রত্যেকটা জব এর ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা তাই আপনাকে নিজে ই বুঝে নিতে হবে কখন কোন প্রশ্ন করবেন আপনি, তবে যে ব্যাপারটা বায়ার পরিষ্কার ভাবে বলে দিয়েছে সেই বাপারগুলি নিয়ে প্রশ্ন না করাই ভাল হবে।

পড়ের স্টেপ নিয়ে কথা বলতে পারেন

আপনি হয়ত এখন ও কাজটা পান নাই, তারপর ও আপনি প্রোজেক্ট এর পরবর্তী স্টেপগুলি নিয়ে কথা বলতে পারেন যেমন আপনি যদি নিরবাচিত হন তাহলে আপনার কাজ করতে গিয়ে কি কি লাগবে, আপনি কি ভাবে কাজগুলি করবেন এরকম বিষয় নিয়ে কথা বলেতে পারেন, তাহলে বায়ার মনে করবে আপনি তার কাজ করার জন্য ভাল ভাবে প্রস্তুতি গ্রহন করেছেন

আপনার আপওয়ার্ক প্রোফাইল সমৃদ্ধ করুন

এই সমৃদ্ধ শব্দটাতে কোন রকম দ্বিধা রাখা যাবে না। সমৃদ্ধ মানে এই না আপনি আপনার প্রোফাইল এ ইচ্ছা মতো আপনি কি কি পারেন দিতে ই থাকবেন। আমি এইটা পারি, ওইটা পারি ইত্যাদি এরকম না। সব থেকে ভাল হয় আপনি যে লাইন এ কাজ করবেন সেখান থেকে ই একটা কি দুইটা সাবজেক্ট ঠিক করে নেন। যেমন আপনি যদি গ্রাফিক ডিজাইন শিখেন থাকেন তাহলে তো আপনি অনেক কিছু ই শিখেছেন, লোগো ডিজাইন, ফটো এডিটিং, প্রিন্ট ডিজাইন, ওয়েব টেমপ্লেট ডিজাইন আরও অনেক কিছু, এখন আপনি চিন্তা করলেন পারি যখন সব ই দিয়ে দেই, প্রোফাইল সমৃদ্ধ হবে, ব্যাপারটা এমন না, অথবা আপনি চিন্তা করলেন অনেক কিছু৮ দেই এক দিক থেকে না এক দিক থেকে কাজ তো পেয়ে ই যাব। এখানেই ভুল গুলি হয়। আপনি একটা কি দুইটা বিষয় নির্বাচন করুন, আবার সেটা জেন এমন না হয় একটা ডাটা এন্ট্রি আর একটা লোগো ডিজাইন। অনেকগুলি একসাথে দেয়ার অসুবিধা কি?

অনেক গুলি একসাথে দিলে বায়ার ধরে নেয় আপনি আসলে কোন কিছুর উপর এই ভাল ভাবে এক্সপার্ট না তাই আপনি পারবেন না।

আর আপনি যদি একটা কি দুইটা বিষয় এর উপর ফোকাস করেন তাহলে ব্যাপারটা এমন হবে যে বায়ার মনে করবে আপনি এগুলির উপর এক্সপার্ট আপনি তার কাজটা ঠিক মতো করতে পারবেন।

তাই আপনার প্রোফাইল এ যদি অনেক কিছু থেকে থাকে নতুন করে শুরু করুন। অনেকটা ঘর নতুন করে সাজানর মতো, আপনার ওভারভিউ মুছে দিয়ে নতুন করে লিখুন, স্কিল এ যে বিসয়গুলি দেয়েছেন সেগুলি নির্বাচন করুন সব কিছু ঢেলে সাজান। আর সব থেকে গুরুত্বপুরন বিষয় হচ্ছে যে আপনি যে বিষয় নির্বাচন করবেন সেটি ঠিক মতো করলেন কিনা। সে জন্য নিজে বুঝার চেষ্টা করুন আপনি কোন কাজটা ভাল ভাবে করতে পারেন, আত্মবিশ্বাস এর সাথে করতে পারেন, যারা অভিজ্ঞ তাদের কাছে পরামর্শ চাইলে কিছু পরামর্শ পেতে পারেন, সে ক্ষেত্রে আমি বলব ফ্রীলেঞ্চেরদের পিছনে না ছুটে যার কাছ থেকে আপনি শিখেছেন তার কাছে যেতে দেখবেন সে খুব ভাল পরামর্শ দিতে পারবে।যে ফ্রীলাঞ্চিং করে তারাই শুধু পরামর্শ দিতে পারবে ব্যাপারটা এমন না।

আপনার কাজের মূল্য বাড়ান

বলেছিলাম প্রথম দিকে যে প্রথমে কোন টাকায় কাজ করেন ভাল রিভিউ এর দিকে মনযোগী হন। এখন বলছি যখন আপনি ৫-৬ টা কাজ সফল ভাবে করে ফেলবেন এবং ভাল রিভিউ পাবেন। আপনার পোর্টফলিও তখন আরও বেশি সমৃদ্ধ হবে তখন আপনি আপনার কাজের মূল্য বাড়িয়ে দেন। আপনি যখন কিছু কাজ করলেন, কিছু রিভিউ পেলেন সেটা একটা প্রমান যে আপনি ভাল ভাবে কাজ করতে পারছেন আর তখন যদি আপনি আপনার কাজের মূল্য বাড়িয়ে দেন তাহলে কাজ পাওয়া নিয়ে কোন সমস্যা হউয়ার কথা না কারন বায়ার সব সময় মানসম্মত কাজের দিকে ই বেশি গুরুত্ব দেয় সেখানে তাকে যদি একটু বেশি খরছ করতে ও হয় সে সেটা করতে রাজি হয়ে যাবে।

ধন্যবাদ

আরিফুল ইসলাম

 

আমার নাম আরিফুল। গ্রাফিক ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, ব্র্যান্ডিং ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কাজ করি। লিখতে অনেক ভালোবাসি। মুলত আইটি বিষয়ক বিভিন্ন লেখা লিখি থাকি।আমি এই ব্লগের এডমিন। আশা করি আপনাদের ভালো কিছু আর্টিকেল দিতে পারবো যা পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন। এটার সাথে আমি ই ক্যাব এবং জেনেসিস ব্লগে ও লিখে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *