অল্প টাকায় ব্যাবসা করার কিছু উপায়

শেয়ার করুন
Share on Facebook37Share on Google+0

এটা তাদের জন্য যারা চিন্তা করছেন একদম ছোট করে শুরু করবেন, অনেকের সাথে আমার মতের মিল না ও হতে পারে তবে আশা করি লেখাটা উপকারি হতে পারে।

প্রোডাক্ট না প্রথমে সার্ভিস নিয়ে কাজ করেন

প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ হলে আপনাকে প্রথমে বেশ বড় একটা এমাউন্ট ইনভেস্ট করতে হবে এটা সত্যি, আবার রিস্ক তো থাকে ই। দেখা গেলো সেল করতে পারলেন না আর ভেবে বসলেন ই কমার্স বিজনেস করে কোন লাভ হয় না। নিজে হতাশ হলেন, অন্য মানুষকে হতাশ করলেন। তাই সার্ভিস ভিত্তিক কাজ দিয়ে শুরু করতে পারেন সেটা ফেসবুক মার্কেটিং হতে পারে, ডেলিভারির কাজ হতে পারে, বাসায় বাসায় গিয়ে সার্ভিস এর ব্যাপার ও থাকতে পারে প্রোডাক্ট এর মধ্যে এমন প্রোডাক্ট হতে পারে যেটা অর্ডার পাওয়ার পর আপনাকে আনতে হবে অথবা বানাতে হবে যেমন খাবার, ফল ইত্যাদি। এভাবে আত্মবিশ্বাস অর্জন করাটা জরুরি।

 

ওয়েবসাইট না ফেসবুক ব্যবহার করেন

প্রথমেই ওয়েবসাইট করার কোন দরকার আছে বলে আমার মনে হয় না। এতে অনেক টাকা লেগে যেতে পারে আর কম টাকায় করলে মান ভালো হবে না আর সেটা খুব ভালো হবে না আপানার জন্য। তাই ফেসবুক এর মাধ্যমে শুরু করেন। একটা পেইজ ওপেন করেন, গ্রুপ ওপেন করেন। ফেসবুক পেইজে এখন বিজনেস সম্পর্কিত অনেক কিছু দিয়েছে আপনি খুব সুন্দর ভাবে ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে ই প্রাথমিক ভাবে শুরু করতে পারেন। আর ওয়েবসাইট ও তো ফেসবুক এ মার্কেটিং করা লাগে।

অফিস নিতে চাইলে পরে নেন

প্রথম থেকেই অফিস নেয়ার ব্যাপারটা ও আমার মনে হয় না দরকার আছে, অফিসের ভাড়া সার্ভিস চার্জ ইত্যাদি ইত্যাদি অনেক খরচ চলে যাবে এখানে। তাই ভালো হয় প্রথমে ঘর থেকে শুরু করেন, সম্ভব হলে ঘরের কোন কোনে পিসি নিয়ে অফিসের মত পরিবেশ করে কাজ করা যায় এতে কাজের গতিটা ঠিক থাকবে। আপনি যদি টিমের মাধ্যমে কাজ করেন সেটা ও অনলাইন এ করা যাবে। ফেসবুক এ, স্কাইপ ইত্যাদি তে, মাসে একদিন সবাই বাইরে কোন রেটুরেন্টে দেখা করতে পারেন। এখানে আপনার টাইম দেয়াটা বেশি জরুরি। টাকার থেকে টাইপ ইনভেস্ট করেন কাজে লাগবে।

টাকা না সময় ইনভেস্ট করেন

আপনার হয়তো কিছু টাকা আছে সেটা কিভাবে খরচ করা যায় সেটা নিয়ে ই চিন্তা শুরু করেন প্রথমে, আমি বলবো টাকা থাকলে রেখে দেন পরে কাজে লাগবে, প্রথমেই লিফলেট, টিভি অ্যাড ইত্যাদি ইত্যাদি এর জন্য টাকা খরচ না করেন। আপনার সময় ইনভেস্ট করেন এটা সব থেকে জরুরি। সম্পর্ক তৈরি করেন যারা আপনার ক্লাইন্ট হতে পারে। তাদের সাথে কথা বলেন, মার্কেট বুঝার চেস্টা করেন, যে প্রোডাক্ট অথবা সার্ভিস নিয়ে কাজ করতে চান সেটার ডিম্যান্ড কেমন সেটা বুঝার চেস্টা করেন। টাকা খরচ বাদেও আপনার অনেক কিছু করার আছে।

সবাইকে জানান আপনার কাজের কথা

 

 

আপনি কাজ শুরু করতে যাচ্ছেন, কাজ শুরু করছেন, কিভাবে করছেন এগুলি মানুষকে জানান, অনলাইন এর বিজনেস এ বিশ্বাসযোগ্যতা সব থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ তাই এটা কিভাবে করা যায় সেটার দিকে মনোযোগ দেন, ফেসবুক এখানে চমৎকার একটা মিডিয়া হিসেবে কাজ করবে, ফেসবুক পেইজে শুধু সেলিং অথবা সার্ভিস এর কথা বললে তো হবে না সেখানে আরো অনেক কিছু বলতে হবে আপনাকে।

যেমন সবাই মিলে কাজ করছেন সেটার একটা ছবি ফেসবুক এ দিতে পারেন, আপনার কাজের জায়গার ছবি সেটা যেমন ই হোক নে কেন। আপনার কি পরিকল্পনা, সবার কাছে জানতে চান কিভাবে কি করলে ভালো হয়। একটা সুন্দর কমিউনিটি গড়ে তুলুন। অনেক সময় দেখবেন অনেকে শুধু কমেন্টে লিঙ্ক দিয়ে বলে আমি এটা করি সেটা করি এরকম না করে আপনি আপনার স্কিল তুলে ধরুন। ভালো করতে পারবেন।

 

ফেসবুক এর বিভিন্ন গ্রউপে জয়েন করেন শুধু সেল পোস্ট আর সেলের কমেন্টের জন্য না, আপনার কাজ সম্পর্কিত গ্রউপে জয়েন করেন, বিভিন্ন টিপস দেন, কমেন্টে এ সমস্যার সমাধান দেন। গ্রউপে নিয়মিত যারা আছে তাদের সাথে ব্যাক্তিগত ভাবে কথা বলেন পরামর্শ চান। মত কথা আবার ও বলছি টাকার থেকে সময় ইনভেস্ট করেন প্রথমে এটাই জরুরি।

Facebook Comments

আমার নাম আরিফুল। গ্রাফিক ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, ব্র্যান্ডিং ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কাজ করি। লিখতে অনেক ভালোবাসি। মুলত আইটি বিষয়ক বিভিন্ন লেখা লিখি থাকি।আমি এই ব্লগের এডমিন। আশা করি আপনাদের ভালো কিছু আর্টিকেল দিতে পারবো যা পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন। এটার সাথে আমি ই ক্যাব এবং জেনেসিস ব্লগে ও লিখে থাকি।

শেয়ার করুন
Share on Facebook37Share on Google+0

2 comments

  • আপনার লেখাটা ভাল লে‌গে‌ছে। আমার নি‌জের ব্যবসাটা অনেকটা এভা‌বেই আগা‌চ্ছে।‌নিয়‌মিত লিখ‌লে আমরা উপকৃত হ‌বো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *